• সোমবার, ২৮ নভেম্বর ২০২২, ১২:০৯ পূর্বাহ্ন

অধ্যাপক ডা. মো. আবদুর রহিমের দু’টি কবিতা

একেনিউজ ডেস্ক / ১৭৩ Time View
প্রকাশিত : বৃহস্পতিবার, ১৯ মে, ২০২২

সর্বগ্রাসী ঘুণ

সমাজে যখন ব্যাপ্ত সর্বগ্রাসী ঘুণ
ঘুমিয়ে রয়েছে কেন প্রজন্ম নতুন?
সর্বস্তরে বিস্তারিত সর্বনাশী ঘুণ
তবুও নীরব কেন কুশলী নিপুণ?

সমাজের রন্ধ্রে রন্ধ্রে ব্যাপ্ত অবক্ষয়
দিকে দিকে উল্লসিত পশুত্বের জয়
যখন ঘটায় এত নগ্ন বিপর্যয়
জাগ্রত হয় না কেন বিব্রত হৃদয়?

ভ্রষ্টাচারে জর্জরিত পশুত্বে প্রলয়
দিকে দিকে কেন এত সংঘটিত হয়?
মানবিকতার এত ক্লিষ্ট পরাজয়
তবুও জাগে না কেন স্তম্ভিত হৃদয়?

মিথ্যাচারে জর্জরিত গ্রস্ত নিত্যদিন
সত্যের আলোকরেখা দিগন্তে বিলীন,
অনিরুদ্ধ ভ্রষ্টাচারে ঘন অন্ধকার
অস্তিত্ব আচ্ছন্ন করে মানবিকতার।

ধিকিধিকি জ্বলে সুপ্ত তুষের আগুন
তবুও ঘুমিয়ে কেন প্রজন্ম নতুন?
মিথ্যার করাল গ্রাসে বিধ্বস্ত দৈনিক
তবুও জাগে না কেন সত্যের সৈনিক?

অব্যাহত আস্ফালন দম্ভ করে জয়
বিধ্বস্ত হৃদয়ে করে সাহস সঞ্চয়
উজ্জীবিত নিবেদিত সন্ধানী পথিক
বিজয়ের পথ খুঁজে পেয়ে যাবে ঠিক।

উপেক্ষার কারাগারে

কেউ যদি ব্যর্থ হয় দিতেই হৃদয়
তবুও কি হতে পারে কখনো প্রণয়?
দূরে সরে যায় যদি না-দিয়ে হৃদয়
তবু কেন নিবেদিত ব্যথিত বিনয়?

কেউ যদি চায় আর কেউবা না-চায়
কারো কাছে হয়ে তবু এত অসহায়
যখন হৃদয় থাকে সমন্বয়হীন
তবু কেনো প্রত্যাশায় কেটে যায় দিন?

প্রত্যাখ্যাত হয়ে এত হীনম্মন্যতায়
প্রচণ্ড আঘাত হেনে আত্মমর্যাদায়
কেন যে মানুষ এত বেহায়াপনায়
বিধ্বস্ত হৃদয় নিয়ে থাকে অপেক্ষায়?

আত্মমর্যাদার প্রতি থেকে উদাসীন
কারো প্রতি নিবেদিত থেকে নিশিদিন
না-পেয়ে হৃদয় শুধু বিলিয়ে হৃদয়
কখনো কি হতে পারে যথার্থ প্রণয়?

উপেক্ষার কশাঘাত সয়ে নিরন্তর
বিপর্যস্ত ক্লান্ত ধ্বস্ত বিপন্ন জর্জর
হৃদয় যখন হয় ধু-ধু বালুচর
কেন যে প্রত্যাশা করে সুখের বাসর!

প্রণয়ের পথে করে নিজেকে বিলীন
ধন্য হতে পারে নাকি কেউ কোনোদিন?
যথাযথ প্রত্যাশিত বিনিময়হীন
উপেক্ষার কারাগারে কেটে যায় দিন।

লেখক: প্রাক্তন চেয়ারম্যান, ইন্টারনাল মেডিসিন বিভাগ, বিএসএমএমইউ, শাহবাগ, ঢাকা।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category

Like Us On Facebook

Facebook Pagelike Widget